• ঢাকা
  • রবিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২১, ৪ বৈশাখ ১৪২৮
Bangla Bazaar
Bongosoft Ltd.

দেড় দিনের ম্যাচের পিচ নিয়ে কিছু বলছেন না রুট


ক্রীড়া ডেস্ক | বাংলাবাজার প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২১, ১০:০৩ পিএম দেড় দিনের ম্যাচের পিচ নিয়ে কিছু বলছেন না রুট
ছবি : সংগৃহীত

বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের অভিষেক ম্যাচ। তার ওপর আবার দিনরাতের টেস্ট। আহমেদাবাদ টেস্ট ঘিরে উত্তেজনার পারদ ছিল তুঙ্গে। কিন্তু সম্ভাব্য তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচটি শেষ হলো মাত্র দেড় দিনে।

তবে সবকিছু ছাপিয়ে আলোচনায় উঠে এসেছে ম্যাচের জন্য বানানো অদ্ভুত পিচ। ইংল্যান্ড অধিনায়ক জো রুটও এ নিয়ে মুখে খুলেছেন। দুই দল মিলে খেলেছে মাত্র ৮৪২ বল।

১৯৩৫ সালের পর এটাই সবচেয়ে কম দৈর্ঘ্যের টেস্ট। (৮৬ বছর আগে ব্রিজটাউনে ওয়েস্ট ইন্ডিজ-ইংল্যান্ড ম্যাচটি শেষ হয়েছিল ৬৭২ বলে)।

দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরুর পর মাত্র ৫ ঘণ্টার মধ্যেই ১৭ উইকেটের পতন হয়েছে। এর মধ্যে এক সেশনের মধ্যেই ৮১ রানে অলআউট হয়েছে ইংল্যান্ড। ভারতের বিপক্ষে এর আগে এত কমে ইংলিশদের গুটিয়ে যাওয়ার নজির নেই।

কিন্তু ম্যাচের এমন ফলাফলের পেছনে নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামের পিচের দায় দেখছেন অনেকে। শুরু থেকেই পিচে অদ্ভুত টার্ন আর বাউন্স দেখা গেল, ধীরে ধীরে সেখানে স্পিনের স্বর্গ আর ব্যাটসম্যানদের সমাধি রচিত হলো।

এমনকি পিচে ধুলো উড়তেও দেখা গেল। এর মধ্যে জো রুট যিনি নিজে পার্ট টাইম বোলার, তিনিও বল হাতে মাত্র ৮ রান খরচে নিলেন ৫ উইকেট। দুই দিনে ভারতীয় স্পিনার অক্ষর প্যাটেল একাই নিলেন ১১ উইকেট। রবিচন্দ্রন অশ্বিনের ঝুলিতে গেল ৯ উইকেট।

প্রথম ইনিংসে ৪ উইকেট নিয়েছিলেন স্পিনার জ্যাক লিচও। অবস্থা দেখে সাবেক ইংলিশ অধিনায়ক মাইকেল ভন তো এই পিচকে ‘ভয়ঙ্কর’ এবং ‘পুরোপুরি লটারি’ বলে বসলেন। তার মতে এটা ৫ দিনের টেস্ট ম্যাচের উপযোগীই নয়। তার উত্তরসূরি স্যার অ্যালিস্টার কুকের মতে, এই পিচে ব্যাট করা ‘একেবারেই অসম্ভব’।

ইংলিশ অধিনায়ক রুটের আক্ষেপ, উইকেটের কারণে দর্শকরা দারুণ একটা ম্যাচ থেকে বঞ্চিত হলো। তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয় ম্যাচটা দর্শকদের কাছ থেকে ছিনিয়ে দেয়া হলো। এর বদলে তারা আমাকে উইকেট পেতে দেখলো। কিন্তু এমনটা হওয়ার কথা ছিল না।' আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী, নিম্নমানের পিচের কারণে কোনো স্টেডিয়াম ডিমেরিট পয়েন্ট পেতে পারে, আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজনও নিষিদ্ধ করা হতে পারে।

কিন্তু বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের পয়েন্ট কমানোর সুযোগ নেই। রুটও পিচ নিয়ে সিদ্ধান্তটা আইসিসির ওপর ছেড়ে দিচ্ছেন। রুট বলেন, ‘আমার মনে হয় গত কয়েক ম্যাচে যা হয়েছে সেদিকে আইসিসির নজর আছে। আমি নিশ্চিত তারা বিভিন্ন সময় বিশ্বের অন্যান্য উইকেটের দিকেও নজর দিয়েছে।

সেসব ক্ষেত্রেও হয়তো একই প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়েছে। সব দলই হোম কন্ডিশনের সুবিধা নেয়। কিন্তু এটা খুবই লজ্জার ব্যাপার যে, আপনার কাছে এত ভালো খেলোয়াড় আছে, কিন্তু তারা একটা টেস্ট ম্যাচে ইনপুট দিতে পারছে না।’ আহমেদাবাদের পিচ নিয়ে নিষেধাজ্ঞা চান কি না এমন প্রশ্নের জবাবে রুট বলেন, ‘এখন এবং আগামীতেও আমরা এমন মাঠে খেলতে চাই যা হবে চ্যালেঞ্জিং।

আর পিচ খেলার উপযোগী কি না তা সেই প্রশ্নের উত্তর দেবে আইসিসি। তবে খেলোয়াড় হিসেবে আমরা অবশ্যই সেরাদের বিপক্ষে প্রতিযোগিতা করতে চাই, কন্ডিশন যা-ই হোক না কেন। তবে অন্তত প্রতিযোগিতাটা তো হতে হবে।’