• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১৪ মে, ২০২১, ৩০ বৈশাখ ১৪২৮
Bangla Bazaar
Bongosoft Ltd.

মোবাইলে কোরআন তেলাওয়াতে অযুর বিধান


হাজ্জাজ বিন ইউসুফ | বাংলাবাজার প্রকাশিত: এপ্রিল ২৩, ২০২১, ১১:০৪ পিএম মোবাইলে কোরআন তেলাওয়াতে অযুর বিধান
ছবি : বাংলাবাজার

পবিত্র মাহে রমজান হলো সিয়াম সাধনা,আত্মসংযম ও নিজেকে গুছিয়ে নেওয়ার মাস। এ মাসেই সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ আসমানি গ্রন্থ পবিত্র আল কোরআন মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর উপর প্রথম অবতীর্ণ হয়েছে। পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতে রয়েছে অশেষ রহমত ও বরকত। যেখানে অন্য মাসে কোরআন তেলাওয়াতে প্রতিটি অক্ষরের জন্য ১০টি নেকি লেখা হয় সেখানে  রমজানে সওয়াব বেড়ে ৭০ গুণ থেকে ৭০০ গুণ পর্যন্ত হয়ে যায়। 

বর্তমানে তথ্য প্রযুক্তির যুগে অনেকের হাতে স্মার্ট ফোন, ট্যাবলেট ইত্যাদি দেখা যায়। যান্ত্রিকতার যাতাকলে সবার সময়ের যেন বড় অভাব। পবিত্র কোরআনের হার্ড কপি তেলাওয়াতের সুযোগ যাদের নাই বা সময় করে নিতে পারছেন না তারা এখন মোবাইলে অ্যাপস দিয়ে কোরআন তেলাওয়াত করছেন। মোবাইলে কোরআন তেলাওয়াতসহ হার্ড কপি তেলাওয়াতের কিছু বিধান আজকে জানবো ইনশাআল্লাহ। 

আল্লাহ তায়ালা সূরা ওয়াকিয়ার ৭৯ নং আয়াতে বলেছেন, “যারা পুতঃপবিত্র তাঁরা ব্যাতীত অন্য কেহ তা স্পর্শ করে না।” এ আয়াতের ব্যাখ্যায় মুফাসসিরগণ বলেন, কোরআনের হার্ড কপি তেলাওয়াত করতে গেলে অবশ্যই ব্যক্তিকে পবিত্র হতে হবে। এখানে পবিত্র বলতে গোসল ফরজ হলে গোসল করে নেওয়া এবং অযু করে নেওয়া। অর্থাৎ, কোরআনের হার্ড কপি যেখানে শুধুই আরবি ভাষা রয়েছে সেটা তেলাওয়াতের জন্য পবিত্রতার সর্বোচ্চ পর্যায় অবলম্বন করতে হবে। তবে অযু ছাড়া তেলাওয়াত করা যাবে কিন্তু স্পর্শ করা যাবে না। অযু ছাড়া স্পর্শ করতে হলে আবরণ বা পর্দা থাকতে হবে। যেমন হাতমোজা বা পাতলা কোনো কাপড়। শর্ত হলো অবশ্যই সেটাকে পবিত্র হতে হবে। তবে যে কোরআনে তাফসির বা অন্য ভাষায় লেখা আছে সেটাতে এই নিয়ম খাটবে না। 

মোবাইলে কোরআন তেলাওয়াতের প্রশ্নে আলেমদের দুটো অভিমত পাওয়া যায়। একদল আলেমের অভিমত, কোরআন তো কোরআনই! সেটা যেখানেই হোক না কেন। তাই মোবাইলেও কোরআন তেলাওয়াতের ক্ষেত্রে সূরা ওয়াকিয়ার ৭৯ নং আয়াতটির বিধান মানতে হবে। অর্থাৎ, অযু করেই পড়তে হবে।

আরেকদল আলেমের প্রসিদ্ধ ও গ্রহণযোগ্য মত হলো, মোবাইলে কোরআন তেলাওয়াতে অযু প্রয়োজন নেই। অযু ছাড়াই মোবাইলে কোরআন তেলাওয়াত করলে সমান সওয়াব পাওয়া যাবে।
তাদের পক্ষে দলিল হলো, মোবাইলের কোরআন আর মাসহাফের কোরআন এক নয়। মোবাইলের কোরআনে অর্থাৎ অ্যাপসে আলোক তরঙ্গ ব্যবহার করা হয়। আবার, বাহ্যত দৃষ্টিতে মোবাইলে কোরআন স্পর্শ করলেও বাস্তবে স্পর্শ করা হয় না।কেননা, কোরআনের উপরে মোবাইলের স্ক্রিন রয়েছে যেটাকে আমরা পর্দা বা আবরণ হিসেবে ধরতে পারি। সেক্ষেত্রে মোবাইলে কোরআন তেলাওয়াতে অযু বাধ্যতামূলক নয়। যেহেতু ইসলাম কোনো কাজকে কঠিন করেনি। তাই এই পদ্ধতিতে কোরআন তেলাওয়াত বৈধ। 

তবে এক্ষেত্রে আলেমদের পরামর্শ হলো যারা অযু করতে সক্ষম বা সামর্থ্য রয়েছে তারা পবিত্র কোরআনের সম্মানার্থে অযু করেই তেলাওয়াত করবেন।

যারা হার্ড কপি পড়ার সুযোগ পাচ্ছেন না বা ভ্রমণে আছেন, বাড়ির ছাদে হালকা বাতাসে, গাড়িতে,বাসে, লঞ্চে, নৌকায় যে যেখানে থাকবেন কোরআন তেলাওয়াতের ইচ্ছে হলেই মোবাইলে রাখা অ্যাপস থেকে তেলাওয়াত করতে পারবেন।

পবিত্র মাহে রমজানে আল্লাহ তা'য়ালা আমাদের বেশি করে কোরআন তেলাওয়াতের তাওফিত দান করুক এবং করোনা মহামারি থেকে হেফাজতে রেখে সুস্থ পৃথিবী দান করুক। আমিন।