• ঢাকা
  • শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭
Bangla Bazaar
Bongosoft Ltd.

এনজিওর মামলায় এক বছরের শিশুর হাজতবাস


মাহবুব আলম, রাজশাহী থেকে | বাংলাবাজার প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৭, ২০২১, ১২:১৮ এএম এনজিওর মামলায় এক বছরের শিশুর হাজতবাস
ছবি: বাংলাবাজার

রাজশাহীর দুর্গাপুরে এনজিওর কিস্তির টাকা দিতে না পারায় এক বছরের শিশুকন্যাসহ গ্রেফতার মা নিলুফাকে  মুক্তি দিয়েছেন আদালত। এর ফলে এলাকাবাসীর মাঝে সন্তোষ বিরাজ করছে।

২৫ জানুযারি সকালে মা ও শিশুর গ্রেফতারের খবর বিভিন্ন দৈনিক ও অনলাইনে প্রচার হলে তীব্র পতিক্রিয়া দেখা দেয়।

এনজিও 'বীজ' এর  ম্যানেজার মহিরুল ইসলামের অপসরন সহ তাকে আইনের আওতায় নেওয়ার দাবীতে ফেসবুকে  ঝড় ওঠে।সামাজিক মাধ্যমে সমালোচনার মুখে ই্ওএন্ও মহসীন মৃধা নিজেও যুক্ত হন এর সাথে, আশ্বাস দেন দ্রুত মুক্তির ব্যবস্থা করার। 

এদিকে জামিনে মুক্তি পাওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়লে শিশুসন্তান ও মাকে দেখতে তাদের বাড়ী উপজেলার মাড়িয়া গ্রামে ভিড় জমাতে থাকেন সাধারন মানুষ। অনেকেই নিলুফার পরিবারকে সহযোগীতা করেছেন সেই সাথে পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাসও দেন।

উল্লেখ্য দুর্গাপুর থানা পুলিশ গত ২৪ জানুয়ারী মধ্যোরাতে উপজেলার মাড়িয়া গ্রামে আব্দুস সালামের বাড়ীতে অভিযান চালিয়ে একবছরের শিশুসন্তান সহ নিলুফাকে গ্রেফতার করে থানায় থানায় নিয়ে যায়। 

২৫ জানুয়ারী সকালে তাদের আদালতে হস্তান্তর করা হলে জেলা সহকারী যুগ্ন জজ বাপ্পী আহমেদের আদালত নিলুফা বেগমের আইনজীবি এ্যাডভোকেট হিমেল হোসনাইন এর আবেদন মঞ্জুর করে তাদের জামিনে মুক্ত করে দেন। 

এবিষয়ে ভূক্তভোগী নিলুফা বেগমের স্বামী আব্দুস সালাম বলেন, ‘এনজিওর কিস্তির টাকা দিতে না পারায় রবিবার মধ্যে রাতে আমার শিশুসন্তান সহ আমার স্ত্রীকে পুলিশ গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। 

আমি শুনলাম আমাদের ইউএনও সাহেব এনজিও ম্যানেজারের সাথে এবিষয়ে কথা বলেছে এবং এই সমস্যা উভয় পক্ষের সাথে বসে সমাধান করে দিবে।’ 
জামিনে মুক্তি পাওয়া নিলুফা বেগম কান্নাজড়ি কন্ঠে বলেন, পুলিশ রাতে ঘুম থেকে তুলে নিয়ে যাওয়ায় আমার শিশু কন্যা খুব ভয় পেয়েছে। এখন পর্যন্ত স্বাভাবিক হয়নি। 

বাচ্চার শরীরে প্রচন্ড জ্বর এসেছে। আল্লাহ তায়ালাই যানে বাচ্চার এই সমস্যা সমাধান হবে নাকি এমনই থাকবে।

এ বিষয়ে 'বীজ' এনজিওর ম্যানেজার মহিরুল ইসলামের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহসীন মৃধা'র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি দেখতে পাই। বিষয়টি অত্যান্ত মানবিক। 

আমি তাৎক্ষনিকভাবে বিষয়টি গুরুত্বের সাথে 'বীজ' এনজিওর ম্যানেজারের সাথে কথা বলি এবং বিষয়টি সহজভাবে সমাধান করার জন্য বলি। 

আগামী ২/৩ দিনের মধ্যে ম্যানেজার সহ ভূক্তভোগী পরিবারের লোকজনদের নিয়ে আমার অফিসে একসাথে বসে মানবিক বিষয়টি সহজভাবে সমাধানের চেষ্টা করবো। 

উল্লেখ্য, মাড়িয়া গ্রামের আব্দুস সালামের স্ত্রীর নামের জনতা ব্যাংকের চেক জমা দিয়ে 'বীজ' এনজিও থেকে একলক্ষ টাকা ঋণ নেয়। ৪মাসের কিস্তি দেওয়ার পর অসুস্থ হয়ে পড়ায় কিস্তি দিতে না পারলে 'বীজ' এনজিও ম্যানেজার জমাকৃত চেক ডিজনার করে নিলুফা বেগমের নামে মামলা করে। 

এই মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি হলে দুর্গাপুর থানা পুলিশ ২৪ জানুয়ারী এক বছরের শিশুসন্তান সহ নিলুফা বেগমকে গ্রেফতার করে।